নবনির্বাচিত ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের ফল প্রত্যাখ্যান, ফের নির্বাচনের দাবি


হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন পুনরায় অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়েছেন সদ্য সহসভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হওয়া নুরুল হক নুর। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) সামনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময় নুর এ দাবি জানান।

ঢাকা ঃ ডাকসু নির্বাচনে ভিপি পদে জয়ী হয়েছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের নেতা মো. নুরুল হক নূর। জিএস পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের গোলাম রাব্বানী। কেন্দ্রীয় সংসদের ২৫টি পদের মধ্যে ২৩টিতেই জয়ী হয়েছে ছাত্রলীগ।

গতকাল সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান ফল ঘোষণা করেন। সিনেট ভবনে ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্যানেল সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ভিপি ছাড়াও সমাজসেবা সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছে।

ভিপি পদে নুরুল হক পেয়েছেন ১১ হাজার ৬২ ভোট। ছাত্রলীগের ভিপি প্রার্থী রেজওয়ানুল হক শোভন পেয়েছে ৯ হাজার ১২৯ ভোট।

জিএস পদে ছাত্রলীগের গোলাম রাব্বানী পেয়েছেন ১০ হাজার ৪৮৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রাশেদ খাঁন পেয়েছেন ৬ হাজার ৬৩ ভোট।

এজিএস পদে ছাত্রলীগের সাদ্দাম হোসেন পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩০১ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুক হোসেন পেয়েছেন ৫৮৯৬ ভোট।

ফল ঘোষণার সময় সেখানে ছাত্রলীগের ভিপি প্রার্থী শোভনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। ভিপি পদের ফল প্রত্যাখ্যান করে ছাত্রলীগ।

এদিকে ভোটগ্রহণের সময় রোকেয়া হলে নুরুল হক নূরের ওপর হামলার অভিযোগ ওঠে। অন্যান্য প্যানেলের সঙ্গে নূরের প্যানেলও ভোট বর্জনের ডাক দেয়।

ডাকসু নির্বাচন, কে কত ভোট পেলেন

ডাকসুর ২৫টি পদের মধ্যে ২৩টিতেই জয় পেয়েছে ছাত্রলীগ। ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। জয়ী প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন এজিএস পদে ছাত্রলীগের সাদ্দাম হোসেন।

গতকাল সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে সিনেট ভবন থেকে ফল ঘোষণা করেন উপাচার্য ও ডাকসুর সভাপতি মো. আখতারুজ্জামান।

এজিএস পদেই সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে। তা পেয়েছেন ছাত্রলীগের সাদ্দাম হোসেন। তিনি পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩০১ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুক হোসেন পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৮৯৬ ভোট।

ভিপি পদে নুরুল হক নুর পেয়েছেন ১১ হাজার ৬২ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগে রেজওয়ানুল হক শোভন পেয়েছেন নয় হাজার ১২৯ ভোট।

জিএস পদে ছাত্রলীগের গোলাম রাব্বানী পেয়েছেন ১০ হাজার ৪৮৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রাশেদ খান পেয়েছেন ছয় হাজার ৬৩ ভোট।

স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের সাদ বিন কাদের চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন ১২ হাজার ১৮৭ ভোট।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের মো. আরিফ ইবনে আলী। তিনি পেয়েছেন নয় হাজার ১৫৪ ভোট।

কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের লিপি আক্তার। তিনি পেয়েছেন আট হাজার ৫২৪ ভোট।

আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের শাহরিমা তানজিন অর্নি। তিনি পেয়েছেন ১০ হাজার ৬০৪ ভোট।

সাহিত্য সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের মাজহারুল কবির শয়ন। তিনি পেয়েছেন ১০ হাজার ৭০০ ভোট।

সংস্কৃতি সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের আসিফ তালুকদার। তিনি পেয়েছেন ১০ হাজার ৭৯৯ ভোট।

ক্রীড়া সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের শাকিল আহমেদ তানভীর। তিনি পেয়েছেন নয় হাজার ৪৭ ভোট।

ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের শামস-ঈ-নোমান। তিনি পেয়েছেন ১২ হাজার ১৬৩ ভোট।

সমাজসেবা সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আখতার হোসেন। তিনি পেয়েছেন নয় হাজার ১৯০ ভোট।

সদস্য পদে জয়ী ছাত্রলীগের যোশীয় সাংমা চিবল পেয়েছেন ১২ হাজার ৮৬৮ ভোট, মো. রকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য পেয়েছেন ১১ হাজার ২৩২, মো. তানভীর হাসান সৈকত পেয়েছেন ১০ হাজার ৮০৫, তিলোত্তমা সিকদার পেয়েছেন ১০ হাজার ৪৬৬, নিপু ইসলাম তন্বী পেয়েছেন ১০ হাজার ৩৯৩, রাইসা নাসের পেয়েছেন নয় হাজার ৭৬৮, সাবরিনা ইতি পেয়েছেন ৯ হাজার ৪৫০, মো. রাকিবুল ইসলাম রাকিব পেয়েছেন আট হাজার ৬৭৩, নজরুল ইসলাম পেয়েছেন আট হাজার ৫০৯, মোসা. ফরিদা পারভিন পেয়েছেন আট হাজার ৪৬৯, মুহা. মাহমুদুল হাসান পেয়েছেন সাত হাজার ৯৭৮, মো. সাইফুল ইসলাম রাসেল পেয়েছেন সাত হাজার ৮১২ ভোট এবং মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম সবুজ পেয়েছেন ছয় হাজার ৫১৭ ভোট।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*